অনেক নাটকের পর অবশেষে মুশফিকুর রহিমের ঐতিহাসিক ব্যাটটির নিলাম শেষ হলো।

এতদিন ৪০ লাখ ৪১ লাখ পর্যন্ত বিড হয়েছে। সানি লিওন (!) এসেও বিড করেছিল। তবে এসব ছিল পুরোপুরি ভুয়া। ফলে নিলাম স্থগিত করে এর নিয়মে আনা হয় পরিবর্তন।

শেষ পর্যন্ত যে মানুষটি মুশফিকের ব্যাট কিনে নিয়েছেন, তিনি নিজেই মহাতারকা। মুশফিকের ব্যাট কিনেছে শহীদ আফ্রিদি ফাউন্ডেশন। পাকিস্তানি অলরাউন্ডারের ফাউন্ডেশন মুশফিকের ব্যাট কিনেছে প্রায় ১৭ লাখ টাকায়।

করোনায় দুর্গত ব্যক্তিদের সহায়তা করতে ২০১৩ সালের মার্চে গলে দেশের প্রথম টেস্ট ডাবল সেঞ্চুরি করা ব্যাটটি নিলামে তুলেছিলেন বাংলাদেশের সবচেয়ে সফল উইকেটকিপার। ৯ মে শুরু হয়ে ১৪ মে রাত ১০টায় শেষ হয়েছে মুশফিকের ব্যাটের নিলাম। শুক্রবার রাতে ব্যাট নিলামে বিক্রি হওয়ার পর ফেসবুক লাইভে এসে সেটির আনুষ্ঠানিক ফল জানিয়েছেন মুশফিক নিজেই। মুশফিকের ব্যাটের নিলাম তত্ত্বাবধান করেছে ই-কমার্সভিত্তিক প্রতিষ্ঠান ‘পিকাবো’।

করোনাভাইরাসের প্রকোপ শুরু হওয়ার পর থেকে নিজের ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে আফ্রিদি প্রচুর ত্রাণ কার্যক্রম চালিয়ে আসছেন পাকিস্তানের নানা প্রান্তে। এই ব্যাটও কিনেছেন তার ফাউন্ডেশনের মাধ্যমেই।

আফ্রিদি কেন কিনেছেন, সেটির ব্যাখ্যা দিয়ে মুশফিক বলেন, ‘খবরটি দেখে আফ্রিদি ব্যক্তিগতভাবে আমার সঙ্গে যোগাযোগ করেন। আমি লিঙ্ক দিই। ১৩ মে প্রস্তাবপত্র পাঠান। তিনি ২০ হাজার ইউএস ডলারে ( ১৬ লাখ ৮০ হাজার টাকা প্রায়) কিনে নেওয়ার প্রস্তাব দেন। পরে এ দামেই তিনি কিনে নিয়েছেন। এ ক্ষেত্রে তামিম ইকবালকেও ধন্যবাদ দিতে হবে। সে আমাকে অনেক সহায়তা করেছে।’

মুশফিক বলেন, ”আফ্রিদির ফাউন্ডেশন অনেক দিন থেকে কাজ করছে। করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতেও পাকিস্তানসহ নানা জায়গায় সহায়তা কার্যক্রম উনার মতো চালিয়ে আসছেন। এত বড় ব্যক্তিত্ব এই সহায়তা করেছেন, তাতে আমি সম্মানিত। যত টাকাই হয়েছে, বিভিন্ন সোর্সের মাধ্যমে যত দ্রুত সম্ভব পাঠিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করব যেন মানুষের জন্য কাজে লাগানো যায়। আমরা আমাদের মতো চেষ্টা করছি। আশা করি, সামর্থ্যবান সবাই মানুষের পাশে দাঁড়াবেন।’

ভুয়া বিডিংকারীদের প্রতি ধিক্কার জানিয়ে ‘মি. ডিপেন্ডেবল’ বলেছেন, ‘এমন একটা মহৎ কাজে যারা ভুয়া বিড করেছেন, আমি তাদের ধিক্কার জানাতে চাই। আপনারা শুধু আমার নামকে ছোট করেননি, বাংলাদেশের ক্রিকেটকে ছোট করেছেন, দেশকে ছোট করেছেন।’

একই প্ল্যাটফর্মে নিলামে ওঠা যুব বিশ্বকাপজয়ী আকবর আলীর জার্সি-গ্লাভস ২ হাজার ডলারে (বাংলাদেশি টাকায় ১ লাখ ৭০ হাজার টাকা) কিনেছেন জুয়েল নামের এক প্রবাসী । মোসাদ্দেক হোসেন, মোহাম্মদ নাঈমের ব্যাট আর মাশরাফি বিন মুর্তজার স্বাক্ষরিত টুপির দাম ঘোষণা করা হয়নি। এটা নিয়ে কাজ চলছে বলে জানিয়েছেন পিকাবোর প্রধান নির্বাহী মরিন তালুকদার।