১৮০ জিহাদিকে মুক্তি দিল মালি

মালির কর্তৃপক্ষ ১৮০ জন ইসলামিক উগ্রপন্থীকে রাজধানীর একটি কারাগার থেকে মুক্তি দিয়েছে। তাদের দেশটির উত্তরে নিয়ে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। রবিবার গভীর রাতে বিষয়টি নিশ্চিত করেন এক কর্মকর্তা। এরফলে জিহাদীদের হাতে ধরা পড়ে বন্ধী থাকা দেশটির একজন বিশিষ্ট বিরোধী রাজনীতিবিদ মুক্তি পেতে পারে বলে গুঞ্জন ছড়িয়েছে। ছয় মাসেরও বেশি সময় ধরে ঐ রাজনীতিবিদ উগ্রপন্থীদের হাতে বন্ধ রয়েছে বলে জানা যায়।

মার্চের শেষের দিকে সৌমাইলা কিসিকে ফিরে আসা জঙ্গিরা মালির সরকারের সাথে বন্দীদের বিনিময় চেয়েছিল বলে ধারণা করা হচ্ছে। বিষয়টি সংবেদনশীল হওয়ায় নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক কর্মকর্তা বলেন, শনিবার প্রায় ৮০ জনকে এবং রবিবার আরও ১১০ জনকেসহ মোট ১৮০ জনকে মুক্তি দেওয়া হয়েছে।

তবে এ বিষয়ে মালির অন্তবর্তীকালীন সরকারের পক্ষ থেকে এখন পর্যন্ত তাৎক্ষণিকভাবে কোন মন্তব্য পাওয়া যায়নি।

সিসে, ৭০ বছর বয়সী রাজনীতিবিদ এবং মালির তিনবারের রাষ্ট্রপতি পদে প্রার্থী ছিলেন, অপহরনের সময় টিমবুক্টুর কাছাকাছি জায়গায় আইন সভার নির্বাচনের জন্য প্রচারণা চালাচ্ছিলেন। এই ঘটনায় তার বডি গার্ড নিহত হন এবং তার বেঁচে থাকার একমাত্র প্রমাণ হলো আগস্টে পাঠানো তার লেখা একটি চিঠি।

অভ্যুত্থানের পর প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম বাব্বার কেইটাকে ক্ষমতাচ্যুত করার পর তার মুক্তি আলোচনার সরকারী প্রচেষ্টা উত্থাপন করা হয়, যদিও এরফলে তার মুক্তির বিষয়ে তেমন কোন অগ্রগতি দেখা যায়নি।

প্রাথমিক অবস্থায় অপহরনের পর কিসের পরিস্থিতি সম্পর্কে অল্প কিছু তথ্য পাওয়া যায়, যখন হামলাকারীরা তার গাড়িতে গুলি করছিল, তখন সে গাড়ির কাঁচে আহত হন।

সাধারনত মালির সামরিক বাহিনী ও জাতিসংঘের শান্তিরক্ষীদের উপর হামলা চালানো ইসলামিক উগ্রপন্থীরা উত্তর ও মধ্য মালিতে সক্রিয় রয়েছেন। ২০১৩ সালে ফরাসী নেতৃত্বাধীন সামরিক অভিযান জিহাদিদের ছত্রভঙ্গ করে দিয়েছিল এবং এরপর থেকে তারা পুনরায় দলবদ্ধ হচ্ছিল এবং পরবর্তী বছরগুলোতে তারা দেশটির ঐ অঞ্চলগুলোতে ছড়িয়ে পড়ে।