দেশ সেরা বড়শির ছিপ তৈরি হচ্ছে ময়মনসিংহে

বাংলাদেশে মাছ ধরার ক্ষেত্রে ফিশিং হুইলের পাশাপাশি বড়শির ছিপের চাহিদাও ব্যাপক।

চাহিদাসম্পন্ন এই বড়শির ছিপের যোগান দিচ্ছে ময়মনসিংহ জেলার মুক্তাগাছা ও গৌরিপুরের দুটি গ্রামের বাসিন্দারা। এই দুই গ্রাম থেকেই প্রতিবছর অন্তত ১০ লক্ষ ছিপ পাইকারি ও খুচরা বাজারে বিক্রি হচ্ছে বলে জানায় স্থানীয়রা।

বাঁশের ছিপ তৈরির জন্য প্রসিদ্ধ হয়ে ওঠা গ্রাম দুটি হলো – ময়মনসিংহ জেলার মুক্তাগাছা উপজেলার মানকোন ইউনিয়নের বাদে মাঝিরা গ্রাম এবং গৌরীপুর উপজেলার মইলাকান্দা ইউনিয়নের লামাপাড়া গ্রাম।

বাদে মাঝিরা গ্রামের বাসিন্দা আমিনুল ইসলাম। তিনি ছিপ তৈরিকে পেশা হিসেবে নিয়েছেন পরিবারিক এই পেশাকে।

তিনি জানান, আমার ছিপ তৈরির কারখানায় পনের জন কাজ করেন। সুনামগঞ্জ ও নেত্রকোনার কয়েকটি এলাকা থেকে ছিপ তৈরির জন্য বিশেষ ধরনের বাঁশের কঞ্চি কিনে আনেন তিনি।

এরপর এসব কঞ্চির ডালপালা সব ছেঁচে বড়শির আকারে কেটে নেন। পরে আগুনে তাপে দিয়ে বড়শির ছিপ তৈরি করা হয়।

আমিনুল বলেন, বর্ষার সময় ছিপের চাহিদা বেশি থাকে। অন্যান্য সময় ছিপ তৈরি করে রাখেন।

এবছর তার কারখানায় দুই থেকে আড়াই হাজার ছিপ তৈরি হচ্ছে বলেও জানান আমিনুল।

আরেক ছিপ তৈরিকারক মজিদ জানান, বর্ষায় প্রায় এক থেকে দেড় লক্ষ টাকা আয় হয়।

আমিনুল ও মজিদ জানান, আকারের ভিত্তিতে তিন ধরনের ছিপ তৈরি করে থাকেন তারা।

সবচেয়ে বড় আকারের বরশির দাম ৪০ টাকা, মাঝারি আকারের দাম ২৫ টাকা আর একেবারে ছোট ছিপের দাম ২০ টাকা।

ছিপ কিনতে আসা বেশির ভাগেরই উত্তরবঙ্গের।