পনিরের কী কী গুণ আছে জানেন?

42

পনির দিয়ে যেমন বানানো যায় সুস্বাদু সব ডিস, তেমনি পনিরের কিন্তু অনেক গুণও রয়েছে। কেন খাবেন পনির জেনে নিন। কটেজ চিজ বা পনির ছাড়া উপমহাদেশে থালি খাবারের কথা ভাবাই যায় না।

ওজন কমায় পনির:

প্রোটিন সমৃদ্ধ পনির অনেক ক্ষণ খিদে নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে। সংযুক্ত লিনোলেয়িক অ্যাসিড (ফ্যাটি অ্যাসিড) চর্বি গলিয়ে দেহের অতিরিক্ত মেদ ঝরায় বলে মত বিশেষজ্ঞদের।

হজম ক্ষমতা বৃদ্ধি:

শরীরে হজম শক্তি বাড়ায় কটেজ চিজ বা পনির। পনিরের মধ্যে থাকে ফসফরাস যা পরিপাকে সাহায্য করে। তা ছাড়া, এর ম্যাগনেসিয়ামজাত উপাদান কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে।

পনিরে রয়েছে প্রোটিন:

ডায়েটিশিয়ানেরা জানাচ্ছেন, প্রোটিনে রয়েছে ভরপুর প্রোটিন। ১০০ গ্রাম পনিরের মধ্যে থাকে ১১ গ্রাম প্রোটিন। তা ছাড়া, আয়রন, ক্যালসিয়াম এবং ম্যাগনেসিয়াম সমৃদ্ধ পনির আমিষ খাবারের বিকল্প হিসেবে বহু দিন ধরেই জায়গায় করে নিয়েছে ডায়েট চার্টে।

হাড় এবং দাঁত মজবুত করে পনির:

নিয়মিত পনির খেলে ক্যালসিয়ামের ঘাটতি পূরণ হয়। দাঁত এবং হাড়ের গঠন মজবুত হয়। বিশেষজ্ঞদের মতে, শরীরে দৈনন্দিন চাহিদার ৮ শতাংশ ক্যালসিয়াম পনির থেকেই পূরণ হতে পারে।

নিয়ন্ত্রণে থাকে সুগার:

পনিরের মধ্যে প্রোটিন জাতীয় উপাদান রক্তে শর্করার পরিমাণ নিয়ন্ত্রণে রাখে। তা ছাড়া, ম্যাগনেসিয়াম হার্ট ভাল রাখে। শরীরের প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়।

হার্টের সুরক্ষায়:

পনিরের মধ্যে রয়েছে পটাসিয়াম যা শরীরে রক্তরসের ভারসাম্য বজায় রাখে। বিশেষজ্ঞদের মতে, পনিরের মধ্যে প্রচুর পরিমাণে সোডিয়াম থাকে যা হৃদরোগের সম্ভাবনা কমায়।

 

গর্ভবতী মহিলাদের জন্য উপকারী:

পনিরে থাকে ফোলেট, যা ভ্রুণের বিকাশে সাহায্য করে। ফোলেট এক ধরণের বি-কমপ্লেক্স ভিটামিন যা রক্তে লোহিত কণিকা উৎপাদনেও বিশেষ ভূমিকা নেয়।