চুল পড়া রুখতে নজর দিতে হবে প্রতিদিনের খাবারের চার্টে

14

শুধু পরিষ্কার থাকলে বা শ্যাম্পু করলেই চুল পড়া কমে না৷ বা বাজার চলতি নামী দামী প্রোডাক্ট মাথায় মাখলেই চুল পড়া কম হবে না৷ আপনার হয়তো অনেকেই জানেন না অপুষ্টির কারণে চুল পড়ে৷ তার জন্য কিছু খাবারের সচেতনতা আনতে হবে৷ তবে চলুন আজ জেনে নিন সেইগুলি কী কী?

ভিটামিন বি:

এটি চুলের ঘনত্ব বৃদ্ধি করে৷ চুল পড়া কমায়৷ নতুন চুল গজাতে সাহায্য করে৷ রোজকার খাবারের তালিকায় যদি ভিটামিন বি রাখা যায়৷ তবে আপনি চুল পড়ার সমস্যার থেকে রক্ষা পাবেন৷ সবুজ শাক, বিভিন্ন ধরণের দানা জাতীয় খাবার, বিভিন্ন ধরণের ডাল, কলা ইত্যাদি খান। নিজের সুন্দর চুলকে পড়ার হাত থেকে বাড়াতে দেরি না করে এই খাবার গুলো রোজ খান৷

ভিটামিন এ:

দেহে ভিটামিন এ এর অভাব হলে চুলের আর্দ্রতা হারায়৷ চুল শুকিয়ে প্রাণহীন হয়ে যায়৷ তাই ডায়াট চার্ট ভুলে গিয়ে মাছের তেল, ডিম, দুধ, ফল, মিষ্টিকুমড়ো, টমেটো, গাজর, মিষ্টি আলু ইত্যাদি খেতে শুরু করে দিন৷ এইসব খাবারে ভিটামিন এ-এর সঙ্গে আছে ওমেগা, ফ্যাটি এসিড ও বিভিন্ন এন্টিঅক্সিডেন্ট যা দেহের জন্য খুবই উপকারী৷ বিশেষ করে চুল, চোখ ও ত্বকের জন্য৷

ভিটামিন ডি:

বিশেষ করে মেয়েদের জন্য চুল পড়া কমাতে ভিটামিন ডি অনেক গুরুত্বপূর্ণ৷ গবেষণায় দেখা যায় যে সকল মেয়েদের চুল পড়ার প্রবণতা অনেক বেশি তারা ভিটামিন ডি-এর অভাবে ভুগে থাকে৷ সূর্যরশ্মি আমাদের ত্বকে ভিটামিন ডি উৎপাদনে সাহায্য করে৷ এছাড়া সামুদ্রিক মাছ, মাছের তেল, ডিমের কুসুম ইত্যাদি ভিটামিন ডি-এর ভালো উৎস৷

ভিটামিন সি:

চুল সাদা হওয়ার বয়স হয়নি৷ অথচ দেখছেন চুলে পাক ধরেছেন৷ ভাবছেন তো কালার করে নেবেন৷ যদি এটাই করেন তবে আপনি অজান্তে কত বড় ভুল করছেন তা জানেন না৷ তাই এই ভুলটা না করে প্রতিদিন খাবারের তালিকায় ভিটামিন সি যুক্ত খাবার রাখুন৷ যেমন ধরুন পেয়ারা, আমলকী, কমলালেবু, কামরাঙা৷ এগুলো আপনার শরীরে ভিটামিন সি-এর অভাব দূর করবে৷

ভিটামিন ই:

অতিরিক্ত চুল পড়ার অন্যতম একটি কারণ ভিটামিন ই-এর ঘাটতি৷ অনেকে আবার অতিরিক্ত চুল পড়া শুরু হলে দোকান থেকে ভিটামিন ই-এর ট্যাবলেট কিনে খাওয়া শুরু করে দেয়৷ কিন্তু শুধু ভিটামিন ই ট্যাবলেট খেলে হবে না খেতে হবে ভিটামিন ই যুক্ত খাবারও৷ বিভিন্ন ধরনের বাদাম, বিশেষ করে আমন্ড বা কাঠবাদাম, পুইশাক, পালংশাক, ধনেপাতা, ব্রকোলী, বাদাম তেল, জলপাইয়ের তেল, পেঁপে ইত্যাদি৷

আয়রন:

আয়রনের অভাবে অ্যানিমিয়া হয়৷ ফলে তখন চুল পড়া অনেক বেড়ে যায়৷ তাই আয়রনের ভালো উৎস হিসেবে সিমের দানা, ডার্ক চকলেট, মুসুর ডাল, মাংস, ডিম, বাদাম, শুকনো ফল, ঢেঁকি ছাটা লাল চাল ইত্যাদি খেলে চুল পড়া থেকে নিস্তার পাবেন৷

আয়োডিন:

দেহের থাইরয়েড গ্রন্থির কার্যক্রমে সমস্যা হলে চুল পড়তে পারে৷ তাই ২৮% থাইরয়েড গ্রন্থির সমস্যায় ভোগা মানুষদের চুল পড়া ও টাক মাথার সমস্যা হয়ে থাকে৷ তাই এই আয়োডিন যুক্ত খাবার খেলে টাকের সমস্যা থেকে দূরে থাকবেন৷ খাদ্যগুলো হল সামুদ্রিক খাবার, স্ট্রবেরি, পনির, দই, দুধ, চিংড়ি, বিভিন্ন সামুদ্রিক মাছ, কলা, আনারস ইত্যাদি৷

তবে হ্যাঁ শুধু খাবার খেলে হবে না৷ দিনে অন্তত ৩০ মিনিট মেডিটেশন করুন৷ ভাবছেন তো চুল পড়ার সঙ্গে আবার মেডিটেশনের কী সম্পর্ক? একটাই সম্পর্ক৷ চুল পড়ার মুখ্য কারণ স্ট্রেস৷ তাই মেডিটেশন করলে আপনার স্ট্রেস লেভেলকে কমিয়ে আনার সঙ্গে সঙ্গে আপনার হরমোনের ভারসাম্যও ফিরিয়ে আনবে৷