রাজার দেহ রক্ষা করতে গিয়ে মাথায় উঠল রানির মুকুট

ছিলেন বডিগার্ড ৷ হয়ে গেলেন রাজরানি ৷ একেই বলে কপাল ৷ এ এক তরুণীর রাজার ব্যক্তিগত দেহরক্ষী থেকে রাজরানি হয়ে ওঠার কাহিনী৷ তবে কন্যাটিও যেমন তেমন নয়৷

থাই এয়ারওয়েজের প্রাক্তন ফ্লাইট অ্যাটেনডেন্ট ছিলেন তিনি। ২০১৪ সালে তাঁকে থাইল্যান্ডের রাজা মহা ভাজিরালোংকর্ণের দেহরক্ষী গ্রুপের সদস্য করা হয়৷

এরপর ২০১৬ সালে রাজার সঙ্গে আলাপ হয়৷ ততদিনে রয়্যাল থাই সেনার জেনারেল হয়ে উঠেছিলেন সুথিডা ৷ তারপরের বছরই রাজার ব্যক্তিগত নিরাপত্তা রক্ষীর দায়িত্বে আনা হয় তাঁকে৷ দেওয়া হয় থানপুইং উপাধি৷ যার অর্থ রয়্যাল লেডি৷

ঠিক কবে থেকে রাজার সঙ্গে রয়্যাল লেডির প্রেম তা জানা যায়নি৷ কারণ রক্ষণশীল রাজপরিবার এই অ্যাফেয়ার্স নিয়ে বরাবরই মুখে কুলুপ এঁটেছিল৷ কিন্তু তাই বলে কি প্রেম কখনও ধামাচাপা দেওয়া যায়! ফাঁকফোকর থেকে ঠিক বেরিয়ে আসে৷

এরপর সবাইকে চমকে চুপিসারে প্রেমিকা সুথিডাকে বিয়ে করে নেন ৬৬ বছরের ‘জোয়ান’ রাজা৷ বুধবার রয়্যাল রীতি মেনে বিয়ে সারেন দু’জনে৷ পরে সেই বিয়ের কিছু ছবি সামনে আসে৷

এদিকে আর কিছুদিন পরে রাজ্যভিষেক হবে মহা ভাজিরালোংকর্ণের৷ শনিবার বুদ্ধ ও ব্রাক্ষণ রীতি মেনে রাজার মাথায় উঠবে মুকুট৷

মহা ভাজিরালোংকর্ণের এর আগে তিন বার বিয়ে করেন৷ প্রতিবারই বিবাহ বিচ্ছেদ হয়ে যায়৷ আগের তিন বিয়ে থেকে রাজার সাত সন্তান আছে৷ প্রসঙ্গত, ৭০ বছর রাজ্যপাট সামলানোর পর ২০১৬ সালে মৃত্যু হয় রাজা ভুমিকোল আদুলইয়াদেজের৷ তাঁর মৃত্যুর পরই মহা ভাজিরালোংকর্ণ পরবর্তী রাজা হন৷

0

Related posts

Leave a Comment