পাকিস্তানে নিষিদ্ধ অক্ষয়ের ‘প্যাডম্যান’

35

ভারতে সঞ্জয় লীলা বানসালীর ‘পদ্মাবত’ মুক্তিতে প্রবল বাধা দিয়েছিল কারণী সেনারা। তাঁদের অভিযোগ ছিল, ছবিতে যা দেখানো হয়েছে তাতে রানি পদ্মিনীর অপমান হবে। যদিও বহু বিতর্কের পর ভারতে মুক্তি পেয়েছে ছবিটি।

এ বার অক্ষয় কুমার অভিনীত ‘প্যাডম্যান’ মুক্তিতে বাধা দিল পাকিস্তান। প্রতিবেশী দেশের সেন্সর বোর্ডের দাবি, আর বালকি পরিচালিত এই ছবির বিষয়বস্তু সংস্কৃতির বিরোধী। যদিও ‘পদ্মাবত’ মুক্তিতে তাদের কোনও বিধি নিষেধ ছিল না।

পাকিস্তানের ‘দ্য ফেডারেল সেন্সর বোর্ড’-এর দাবি, ‘প্যাডম্যান’-এ যে বিষয়কে পর্দায় তুলে ধরা হয়েছে তা নিয়ে এখনও সামাজিক ট্যাবু রয়েছে। ফলে কোনোভাবেই সে দেশে এই ছবিকে মুক্তির ছাড়পত্র দেওয়া সম্ভব নয়।

‘দ্য ফেডারেল সেন্সর বোর্ড’-এর সদস্য ইশক আহমেদ বলেন, ‘‘এমন কোনও ছবি দেখানোর অনুমতি আমরা দিতে পারি না যা আমাদের ঐতিহ্য এবং সংস্কৃতির বিরোধী।’’

এই ছবিতে নারীদের ঋতুকালীন সময়ে স্যানিটারি ন্যাপকিনের প্রয়োজনীয়তার কথা বলা হয়েছে। গোটা ঘটনার নেপথ্যে রয়েছেন তামিলনাড়ুর সমাজ সংস্কারক অরুণাচলম মুরুগানানথাম। তাঁকে সকলে ভারতের ‘মেনস্ট্রুয়েশন ম্যান’ নামে চেনেন। কারণ? মেনস্ট্রুয়েশন চলাকালীন প্রত্যন্ত গ্রামের নারীদের প্যাড ব্যবহার করতে শিখিয়েছেন তিনি। শিখিয়েছেন পরিচ্ছন্নতা।

সেই অরুণাচলমের চরিত্রে অভিনয় করেছেন অক্ষয় কুমার। এ প্রসঙ্গে আগেই অক্ষয় বলেছিলেন, ‘‘কেউ এটা নিয়ে কথা বলতে চান না। এতটাই ট্যাবু রয়েছে যে, ভাবেন এ নিয়ে কথা বললে সম্মান কমে যাবে। ফলে সকলের সামনে বিষয়টি নিয়ে আসার জন্য এটাই সঠিক সময়।’’

অন্যদিকে জনপ্রিয় পাক চিত্রপরিচালক সৈয়দ নূর সংবাদ সংস্থাকে বলেন, ‘‘অন্য দেশের ছবিতে সব সময় নজরদারি চালানো উচিত। শুধু প্যাডম্যান নয়। আমি মনে করি পদ্মাবতও এ দেশে রিলিজ করানো উচিত হয়নি। কারণ এখানে মুসলিমদের খুব নেতিবাচক ভাবে দেখানো হয়েছে।’’