অরিজিতের ওপর রাগ কমেনি সালমান খানের

78

অরিজিত সিংহের ওপর এখনও রাগ কমেনি সালমান খানের। অন্তত বলিউডের কোনও কোনও মহল তেমনটাই মনে করছেন। কারণ, এই নিয়ে তিন বার নিজের ছবি থেকে অরিজিতের গান বাদ দিলেন ‘ভাইজান’। বদলে পাক শিল্পী রাহাত ফতে আলি খান গানটি গেয়েছেন বলে খবর বেরিয়েছে।

প্রথমে ‘সুলতান’ ছবিতে অরিজিতের গাওয়া ‘জগ ঘুমিয়া’ গানটি বাদ দিয়ে সেটি রাহাত ফতে আলি খানকে দিয়ে ফের গাইয়েছিলেন সালমান। এর পর ‘টাইগার জিন্দা হ্যায়’ ছবি থেকে অরিজিতের গাওয়া ‘দিল দিয়া গালা’ গানটি বাদ দিয়ে সেটি পাকিস্তানের গায়ক আতিফ আসলামকে দিয়ে গাওয়ান সালমান। এ বার ‘ওয়েলকাম টু নিউ ইয়র্ক’।

এই ছবিতে সালমানকে একটি আইটেম নম্বরে পারফর্ম করতে দেখা যাবে। তবে সেই ছবি থেকেও অরিজিতের গাওয়া একটি গান বাদ দিয়েছেন সালমান। এ বারও রাহাত ফতে আলি খানকে দিয়েই নতুন করে গানটি গাইয়েছেন বলে জানা গিয়েছে।

এই পাক প্রীতির জন্য সোশ্যাল মিডিয়ায় তুমুল সমালোচিত হচ্ছেন সালমান খান। এই ঘটনার তীব্র সমালোচনা করেছেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী তথা গায়ক বাবুল সুপ্রিয়। বাবুলের প্রশ্ন, ভারত-পাক সীমান্তে উত্তেজনা যখন ক্রমবর্ধমান, তখন বিনোদন শিল্পের জন্য পাকিস্তানে হাত বাড়াতে হবে কেন?

তাঁর ব্যাখ্যা,  বলিউড ভারতীয়ত্বের অবিচ্ছেদ্য অঙ্গ। তাদের একটা জাতীয় দায়িত্ব আছে। পাকিস্তান সন্ত্রাসবাদ ছড়াচ্ছে। তাই এর বিরুদ্ধে প্রতিবাদ হিসেবেই ভারতীয় ছবিতে পাক শিল্পীদের যোগদান নিষিদ্ধ করা উচিত বলিউ়ডের।

বাবুলের সমালোচনা, বলিউড-খ্যাত এক জন পাক শিল্পীর নামও কেউ মনে করতে পারবেন না, যিনি পাকিস্তানের সন্ত্রাসবাদী কার্যকলাপের বিরুদ্ধে মুখ খুলেছেন। সুতরাং, যথেষ্ট হয়েছে! ওদের নিষিদ্ধ করো, শুধু এই অপরাধে যে, ওরা পাক শিল্পী।

অথচ, একই সঙ্গে বাবুল বলেন, শিল্পী রাহাত বা আতিফকে নিয়ে আমাদের কোনও সমস্যা নেই। সমস্যা তাঁদের পাক পরিচয় নিয়ে।

তবে সালমান-অরিজিত্ বিবাদ নতুন নয়। ‘সুলতান’-এর সাংবাদিক সম্মেলনে তিনি চিনতেও পারেননি অরিজিতকে। সে সময় অরিজিত্ প্রসঙ্গে তাঁকে প্রশ্ন করা হলে সবাইকে চমকে দিয়ে সল্লু বলেন, ‘‘সেটা আবার কে!’’

তাঁকে ফের প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, “ও সেই গায়কের কথা বলছেন!” সে সময়ই ভাইজান বলেছিলেন, ‘‘একটা ছবিতে অনেক গায়ক-গায়িকা গান করেন। কিন্তু পরিচালক বা প্রযোজক ঠিক করেন, কার গলাটা সবচেয়ে ভাল লাগছে। তাঁরটাই থাকে। বাকিদের গান বাতিল হয়ে যায়। এতে এত আপসেট হওয়ার বা দুঃখ পাওয়ার কী আছে? এটাই তো জীবন।’’

সত্যিই কি অরিজিতকে এখনও ক্ষমা করতে পারেননি সালমান? প্রশ্নটা উঠছে বলিউডের অন্দরেই।