ইউটিউব থেকে অর্থ উপার্জনের ব্যবস্থা কঠিন হচ্ছে

140

ভিডিও দেখার ওয়েবসাইট ইউটিউব থেকে যাঁরা ভিডিও প্রকাশের (আপলোড) মাধ্যমে অর্থ উপার্জন করতে চান, তাঁদের জন্য আরও কঠোর নিয়ম প্রয়োগ করতে যাচ্ছে প্রতিষ্ঠানটি। তা ছাড়া প্রিমিয়াম সেবার সঙ্গে যুক্ত করার আগে অর্থাৎ বড় প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন জনপ্রিয় ভিডিওর সঙ্গে যুক্ত করার আগে প্রতিটি ভিডিও স্বয়ংক্রিয় নয়, বরং কর্মীরা নিজে যাচাই করে নেবেন। এ ধরনের পদক্ষেপ নেওয়ার পেছনের কারণ হিসেবে বলা হয়েছে, একসঙ্গে অনেকগুলো প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন বর্জন করা এবং একটি বিতর্কিত ব্লগের কথা। যেখানে একজন আত্মহত্যাকারীকে দেখা গেছে।

এই নিয়ম বাস্তবায়ন করা হলে একজন ভিডিও প্রকাশককে ভিডিওর মাধ্যমে অর্থ উপার্জনের ক্ষেত্রে কঠোর শর্তপূরণের মধ্য দিয়ে যেতে হবে। ভিডিও প্রকাশকের থাকতে হবে কমপক্ষে এক হাজার অনুসারী। আর ১২ মাসের মধ্যে ভিডিওটি ৪ হাজার ঘণ্টার বেশি সময় অন্যান্য ইউটিউব ব্যবহারকারীর দ্বারা দেখতে হবে। আগে শর্তটি ছিল যেকোনো সময়ের মধ্যে ভিডিও ১০ হাজার বার দেখা হলেই হবে। একটি ব্লগপোস্টে ইউটিউবের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, স্প্যামার বা যারা জালিয়াতির উদ্দেশ্যে ইউটিউব ব্যবহার করত, তাদের প্রতিহত এবং তাদের ওপর নজর রাখা এখন সম্ভব হবে।

একটি গবেষণা প্রতিষ্ঠানের পরামর্শদাতা মার্ক মুলিগ্যান মনে করেন, বর্তমান পদক্ষেপ বিতর্ক কমিয়ে আনবে। তিনি আরও মনে করেন, ভিডিও প্রকাশকদের ক্ষেত্রে বিষয়টি কিছুটা কঠোর হবে। তবে যেভাবে প্ল্যাটফর্মটি বাড়ছে, সে ক্ষেত্রে বর্তমান পদক্ষেপ ইতিবাচক হবে।

তবে গুগলের উপস্থাপিত প্রোগ্রাম নজর কাড়ার মতো। যেখানে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান জনপ্রিয় ভিডিওগুলোর মধ্যে ৫ শতাংশ ভিডিওর সঙ্গে তাদের বিজ্ঞাপন যুক্ত করার জন্য অতিরিক্ত অর্থ প্রদান করবে। তবে ভিডিও প্রকাশক অবশ্যই ১৮ থেকে ৩৪ বছর বয়সী হতে হবে। এ প্রক্রিয়াটি আপাতত স্বয়ংক্রিয়ভাবে চলছে। তবে আগামী মার্চের মধ্যে এ ধরনের প্রাসঙ্গিক সব কাজ কর্মীদের নিজ হাতে করানো হবে।