মেধাবী তরুণদের সিলিকন ভ্যালিতে আগ্রহে ভাটা

7

সান ফ্রান্সিসকোর সিলিকন ভ্যালিতে কাজ করার স্বপ্নে বিভোর রয়েছেন কয়েক কোটি তরুণ। কারণ সেখানে ফেইসবুক, গুগল ও অ্যাপলের মতো বড় বড় কোম্পানিগুলোর অফিস।

সারা বিশ্বের সবচেয়ে মেধাবী প্রকৌশলীরা প্রযুক্তি উদ্ভাবনের কেন্দ্রস্থলটিতে কাজ করতে চাইবেন সেটাই তো স্বাভাবিক। কিন্তু যারা ইতোমধ্যে সিলিকন ভ্যালিতে কাজ করার স্বপ্নটি পূরণ করেছেন এবং সেখানকার কাজের ধারা সম্পর্কে অভিজ্ঞতা অর্জন করেছেন তাদের কাছে সিলিকন ভ্যালির আকর্ষণ কমে আসছে।

সম্প্রতি সিলিকন ভ্যালিতে কর্মরত ৩০০ তরুণের ওপরে একটি জরিপ চালায় বার্ন্সউইক গ্রুপ। জরিপে অংশগ্রহণকারীদের মতে, সিলিকন ভ্যালির বাইরেও অন্য একটি এলাকা হয়ে উঠবে প্রযুক্তি উদ্ভাবনের কেন্দ্রস্থল।

৭৪ শতাংশের ধারণা, আগামী ৫ বছরের মধ্যে পরবর্তী সিলিকন ভ্যালি হয়ে উঠবে চীনের কোনো একটি অঞ্চল।জরিপ থেকে আরও জানা গেছে, তরুণ মেধাবী কর্মী খুঁজে পেতে এখন গলদঘর্ম হচ্ছেন সিলিকন ভ্যালির কর্মকর্তারা।

সেখানে চাকরির বাজার বেশ ভালো হওয়ার সত্তেও গত বছরের তুলনায় এখন কম সংখ্যক মেধাবী তরুণ পাওয়া যাচ্ছে।একই চিত্র ফুটে উঠেছে জরিপের ফলাফলে। আগামী এক বছরের মধ্যে ১৮ থেকে ৩৪ বছর বয়সী ৪১ শতাংশ তরুণ সিলিকন ভ্যালি ছাড়তে চান।

৩৫ থেকে ৪৪ বছর বয়সীদের মধ্যে এই হার ২৬ শতাংশ।এর পেছনে বেশ কয়েকটি কারণ রয়েছে। তবে প্রধান কারণ হলো সিলিকন ভ্যালিতে সব কিছুর দাম বেশি। থাকা খাওয়ার খরচ যেমন বেড়েছে তেমনি বেড়েছে যানজট।সিলিকন ভ্যালির ৭৪ শতাংশ কর্মী জানিয়েছেন, অচিরেই সিলিকন ভ্যালির শক্তিশালী প্রতিদ্বন্দ্বী তৈরি হবে।

তবে একইসঙ্গে তারা এটাও জানিয়েছেন, সিলিকন ভ্যালির প্রধান দুটি বৈশিষ্ট্য অন্য কোনো অঞ্চলে খুঁজে পাওয়া কঠিন হবে। এখানে যেমন অসংখ্য মেধাবী তরুণ রয়েছেন তেমনি তাদের আইডিয়াকে স্বাগত জানানোর ঐতিহ্যও গড়ে উঠেছে।

প্রযুক্তি বিশ্বের স্বর্গরাজ্যটির জৌলুশ যে এখনি শেষ হয়ে যাবে তা নয়। আগামীতে সিলিকন ভ্যালির কোম্পানিগুলো আরও ভালো করবে বলে বিশ্বাস ৫৭ শতাংশ কর্মীর।