সিফাত উল্লাহ কি সত্যি সিজোফ্রেনিয়ার রোগী?

170

বাংলাদেশের ক্রিকেটার থেকে শুরু করে রাজনীতিবিদ নিজ নিজ অঙ্গনে স্বনামধন্য ব্যক্তিদের নিয়ে কুরুচিকর মন্তব্য করে অল্প সময়েই আলোচনায় চলে এসেছেন সিফাত উল্লাহ ওরফে সেফুদা। অস্ট্রিয়া ভিয়েনা বসবাসরত এ প্রবাসী বাংলাদেশি প্রায়ই ইন্টারনেটে লাইভে এসে ব্যক্তি বিশেষকে আক্রমণ করে অশ্লীল ভাষায় কথা বলেন। এ নিয়ে সামাজিক মাধ্যমে এক ধরনের অস্থিরতা তৈরি হয়েছে।

ঝামেলায় জড়িয়ে দীর্ঘ সময় জেল খেটেছেন সিফাত উল্লাহ। পরিবারের সদস্যদের থেকেও তিনি বিচ্ছিন্ন। ভিয়েনায় একাকী জীবনযাপন করছেন তিনি। সেখান থেকেই তার করা লাইভগুলো একের পর এক বিতর্কের জন্ম দিয়েছে। তার স্ত্রী দাবি করেছেন, সিফাত উল্লাহ আসলে সিজোফ্রেনিয়ায় আক্রান্ত। এ ভিডিওগুলো বন্ধ করার কি কোনো উপায় নেই? সে তো অসুস্থ কিন্তু সামাজিক মাধ্যম কর্তৃপক্ষ কি এগুলো বন্ধ করে দিতে পারে না?

জানা গেছে, সিফাত উল্লাহর গ্রামের বাড়ি চাঁদপুরে। ১৯৯০ সাল থেকে তিনি অস্ট্রিয়ার রাজধানীর ভিয়েনায় অবস্থান করছেন। তিনি যে মাদকাসক্ত তা স্পষ্ট। তিনি প্রায়ই লাইভে এসে মদের গুণাগুণ বর্ণনা করেন এবং মদ পান করেন। তার ‘মদ খাবি মানুষ হবি’ সংলাপটাও এখন ইন্টারনেটে ভাইরাল।

ভিয়েনা বাঙালি কমিউনিটির পরিচিত মুখ ও প্রবাসী সাংবাদিক ফিরোজ আহমেদ জানান, ভিয়েনা বাংলাদেশ কমিউনিটির এক পারিবারিক ঝগড়ার কারণে কোর্টের রায়ে দীর্ঘদিন ভিয়েনায় জেল খাটেন সিফাত উল্লাহ। মুক্ত হবার পর অস্ট্রিয়ার আইন অনুযায়ী তার লিগ্যাল হবার সব রাস্তা বন্ধ হয়ে যায়। স্ত্রী সন্তানদের থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েন তিনি। মানসিকভাবে ভেঙে পড়ে মাদকাসক্ত হয়ে পড়েন। পরবর্তীতে মানসিক বিকারগ্রস্ত হয়ে পড়েন সিফাত উল্লাহ।