দেবী’র সাফল্যে নিউইয়র্কের উৎসবে জয়া আহসান

107

দেশের গণ্ডি পেরিয়ে বিদেশের মাটিতেও ‘দেবী’ ছবির জয়জয়কার। স্থানীয় সময় শুক্রবার নিউইয়র্কে হয়ে গেল ছবিটির উৎসব।

এই উৎসবের মধ্যমণি ছিলেন অভিনেত্রী জয়া আহসান। তাকে লাল গালিচা সংবর্ধনা দেওয়া হয়। প্রবাসীরা প্রিয় অভিনেত্রীকে কাছে পেয়ে হয়ে ওঠেন আত্মহারা।

লং আইল্যান্ড সিটির অভিজাত একটি ব্যাঙ্কুয়েটে লালগালিচা সংবর্ধনা দেওয়া হয় জয়া আহসানকে। যেখানে প্রবাসের বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষেরা উপস্থিত হয়েছিলেন।

জয়া আহসান যখন লাল গালিচায় পা রাখেন তখন অনুপম রায়ের কথা, সুর ও কণ্ঠে ‘দেবী’ ছবির ‘দু’ মুঠো বিকেল’ গানটি বেজে ওঠে।

দু’পাশে আমন্ত্রিত অতিথিদের অভিনন্দন আর শুভেচ্ছার জবাব দিতে দিতে সংবর্ধনা মঞ্চে আসন নেন জয়া আহসান। এসময় সেখানে উপস্থিত হন বায়োস্কোপ ফিল্মসের প্রতিষ্ঠাতা এবং সিইও ডা. রাজ হামীদ ও নওশাবা রশীদ রুবনা।

অনুষ্ঠানের শুরুতেই মুক্তিযুদ্ধে শহীদ বুদ্ধিজীবীদের প্রতি সম্মান জানিয়ে এবং চলচ্চিত্রকার আমজাদ হোসেনের মৃত্যুতে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়।

এরপর সাংবাদিক হাসানুজ্জামান সাকীর সঞ্চালনায় শুরু হয় কথোপকথন। শুরুতেই দেবীর সাফল্যে যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী দর্শকদের ধন্যবাদ জানান জয়া আহসান।

তিনি বলেন, বাংলাদেশের চলচ্চিত্র তার হারানো গৌরব ফিরে পাচ্ছে। বিদেশেও বাংলা ছবির দর্শক সৃষ্টি হচ্ছে। চলচ্চিত্রের জন্য এটি বিরাট ইতিবাচক দিক।

জয়া বলেন, দেশে এখন অনেক ভাল ছবি নির্মাণ হচ্ছে, তবে ব্যক্তি বিশেষের চাইতে বাংলাদেশের সরকারই চলচ্চিত্রের বড় পৃষ্ঠপোষক। তিনি জানান, সুস্থ-সুন্দর চলচ্চিত্র নির্মাণে সরকার ন্যূনতম শর্তে অনুদান দিচ্ছে। যা আমাদের চলচ্চিত্রকে আরও অনেক দূর এগিয়ে নিতে সহায়ক হবে।

ডা. রাজ হামীদ জানান, যুক্তরাষ্ট্রে দেবী ইতিহাস সৃষ্টি করেছে। ৩০টি শহরে ছবিটির অন্তত ১২০টির মতো প্রদর্শনী হয়েছে। লুজিয়ানার ব্যাটন রুজ ও কলোরাডোর ডেনভার শহরে প্রথম কোনো বাংলা ছবি প্রদর্শিত হয়েছে। মিশিগানের ডেট্রয়েটে দশ বছর পর বাংলা ছবি প্রদর্শিত হলো।

যুক্তরাষ্ট্রে ‘দেবী’র ব্যবসায়িক সাফল্যের একটি আনুমানিক হিসেব দেন বায়স্কোপ ফিল্মসের আরেক কর্ণধার নওশাবা রশীদ রুবনা। তিনি জানান, নিউইয়র্কে প্রথম দুই সপ্তাহে প্রায় ৫০ হাজার ইউএস ডলার আয় হয়েছে। তবে পুরো হিসেব এখনও পাওয়া যায়নি। তিনি জানান, অন্যান্য শহরেও ‘দেবী’ ব্যাপক সাড়া ফেলেছে।

দ্বিতীয় পর্বে মঞ্চে আসেন জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি ও রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন এবং নিউইয়র্কে বাংলাদেশের কনসাল জেনারেল সাদিয়া ফয়জুননেসা। তারা দেবীর প্রিমিয়ার শো’তে ছবিটি দেখার অভিজ্ঞতা তুলে ধরে সুস্থ চলচ্চিত্রের পাশে থাকার কথা পুর্নব্যক্ত করেন।

মাসুদ বিন মোমেন সম্প্রতি আর্মেনিয়ার একটি ছবি দেখার অভিজ্ঞতা বর্ণনা করে বলেন, ওই দেশের গণহত্যার উপর নির্মিত ছবিটি জাতিসংঘে প্রদর্শিত হলে বিভিন্ন দেশের প্রতিনিধিরা তা দেখেন। তিনি বলেন, বাংলাদেশের গণহত্যা বা ইতিহাসের বৃহৎ প্রেক্ষাপট নিয়ে ছবি নির্মাণ হলে তা বিশ্ব দরবারে প্রদর্শনের প্রয়োজনীয় সব ব্যবস্থা গ্রহণের সুযোগ রয়েছে। তিনি এ ধরনের ছবি নির্মাণে এগিয়ে আসার জন্য বাংলাদেশের চলচ্চিত্রকারদের প্রতি আহ্বান জানান।

সাদিয়া ফয়জুননেসা বলেন, জয়া আহসান দেশের সীমানা পেরিয়ে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে পরিচিতি পেয়েছেন। তিনি পশ্চিমবঙ্গেও সমান জনপ্রিয় এবং সেখানকার ব্যস্ততম অভিনয়শিল্পী। জয়া আহসানকে দেশের একজন শুভেচ্ছাদূত আখ্যা দেন তিনি।

দেবী’র সেলিব্রেশনের পাশাপাশি অনুষ্ঠানে ভারতীয় পরিচালক কৌশিক গাঙ্গুলীর পরবর্তী ছবি বিজয়া’র প্রমোশনেও অংশ নেন জয়া আহসান। ছবিটিতে তিনি মূল চরিত্রে অভিনয় করেছেন। জয়া জানান, গত বছর ভারতে ‘বিসর্জন’ ছবিটি মুক্তি পায়। দুই বাংলার গল্প নিয়ে নির্মিত ছবিটি সেদেশে ব্যাপক আলোচিত হয়। ছবিটি বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে ভারতে জাতীয় পুরস্কার পেয়েছে। এবার ওই ছবির সিক্যুয়েল তৈরি হয়েছে ‘বিজয়া’।

জয়া অভিনীত ‘বিজয়া’ জানুয়ারিতে ভারত ও বাংলাদেশে মুক্তি পাবে। যুক্তরাষ্ট্রেও ছবিটি একই সময় মুক্তি পাওয়ার কথা রয়েছে। ইতোমধ্যে ছবিটির ট্রেইলর সব মহলে ব্যাপক প্রশংসিত হয়েছে। ভারত-বাংলাদেশ প্রেক্ষাপট নিয়ে নির্মিত ‘বিজয়া’ দেখার জন্য জয়া আহসান সকলের প্রতি আহ্বান জানান।

অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন- প্রবীণ অভিনয়শিল্পী রেখা আহমেদ, রিচি সোলায়মান, খাইরুল ইসলাম পাখি, সৈয়দ জাকির আহমেদ রনি, টিভি উপস্থাপিকা ফাতেমা শাহাব রুমা, সংবাদ পাঠিকা সাদিয়া খন্দকার প্রমুখ।

এর আগে নিউইয়র্কের জ্যামাইকা মাল্টিপ্লেক্সে এসে নামলেন দুই বাংলার জনপ্রিয় অভিনয়শিল্পী জয়া আহসান। যুক্তরাষ্ট্রে তার আগমন উপলক্ষে ‘দেবী’ ছবির বিশেষ একটি প্রদর্শনী হয়।

ছবির বিরতিতে তিনি আনুষ্ঠানিকভাবে যুক্তরাষ্ট্রের দর্শকদের ধন্যবাদ জানান। ছবি শেষ হলে দর্শকদের সঙ্গে আড্ডায় মেতে ওঠেন জয়া। এসময় দর্শকরা ‘দেবী’ ছবি নিয়ে তাদের ভালো লাগার কথা জানান। প্রিয় শিল্পীকে কাছে পেয়ে ছবি তোলেন প্রবাসীরা দর্শকরা।