না ফেরার দেশে সুবীর নন্দী

না ফেরার দেশে পাড়ি জমালেন দেশের সঙ্গীতাঙ্গনের উজ্জল নক্ষত্র সুবীর নন্দী। গত রাত ৪টা ২৬ মিনিটে তিনি সিঙ্গাপুরে চিকিৎসাধীণ অবস্থায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। সুবীর নন্দী দীর্ঘদিন ধরে কিডনি ও হৃদরোগে ভুগছিলেন।  প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একুশে পদক পাওয়া বরেণ্য সংগীতশিল্পী সুবীর নন্দীর মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন। আজ মঙ্গলবার সকালে এক শোকবার্তায় প্রধানমন্ত্রী দেশের সাংস্কৃতিক অঙ্গনে এই প্রখ্যাত কণ্ঠশিল্পীর অবদানের কথা উল্লেখ করে বলেন, ‘পাঁচবার জাতীয় পুরস্কার বিজয়ী এই কণ্ঠশিল্পী তাঁর কাজের মাধ্যমে মানুষের হৃদয়ে আজীবন বেঁচে থাকবেন।’ সুবীর নন্দীর বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করেন প্রধানমন্ত্রী এবং তাঁর শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান। বাসস।

হৃদ্‌রোগে আক্রান্ত হওয়ার পর সুবীর নন্দীর শরীরের কয়েকটি অঙ্গ বিকল হয়ে পড়লে তাঁকে উন্নত চিকিৎসার জন্য সিঙ্গাপুর জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আজ ভোরে তিনি মারা যান। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্যোগে উন্নত চিকিৎসার জন্য গত ৩০ এপ্রিল তাঁকে সিঙ্গাপুরের হাসপাতালে পাঠানো হয়।

এর আগে সিলেট থেকে ঢাকা আসার পথে ১৪ এপ্রিল সুবীর নন্দী অসুস্থ হয়ে পড়লে সুবীর নন্দীকে ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

সুবীর নন্দী ‘মহানায়ক’ (১৯৮৪), ‘শুভদা’ (১৯৮৬), ‘শ্রাবণ মেঘের দিন’ (১৯৯৯), ‘মেঘের পরে মেঘ’ (২০০৪) ও ‘মহুয়া সুন্দরী’ (২০১৫) চলচ্চিত্রে গানে কণ্ঠ দিয়ে পাঁচবার শ্রেষ্ঠ পুরুষ কণ্ঠশিল্পী হিসেবে বাংলাদেশ জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পান। এ বছর একুশে পদক পান তিনি।

0

Related posts

Leave a Comment