মিঠুন-সাইফউদ্দিনের ব্যাটে সম্মানজনক স্কোর

11

দুই ওপেনার তামিম ইকবাল এবং লিটন দাস পুরোপুরি ব্যর্থ। তিনে নেমে দারুণ আত্মবিশ্বাসের ছটা দেখিয়েছিলেন সৌম্য সরকার। তার গতিময় ইনিংসটি থামলে বাংলাদেশ আদৌ দেড়শ করতে পারবে কিনা তা নিয়ে শংকা জাগে। তবে সব শংকা কাটিয়ে ৪৮.৫ ওভারে ২৩২ রানে অল-আউট হয়েছে মাশরাফি বিন মুর্তজার দল।

এই স্কোর বড় অবদান একমাত্র হাফ সেঞ্চুরিয়ান মোহাম্মদ মিঠুন এবং পেস বোলিং অল-রাউন্ডার মোহাম্মদ সাইফউদ্দিনের। এবার দেখার এই স্কোর নিয়ে কতটা লড়াই করতে পারে টাইগাররা।

নেপিয়ারে টস জিতে ব্যাট করতে নেমে দুই পেসার ম্যাট হেনরি আর ট্রেন্ট বোল্টের তোপের মুখে পড়ে টাইগাররা। দুই ওপেনার তামিম ইকবাল (৫) এবং লিটন দাস (১) যথাক্রমে বোল্ট আর হেনরির শিকার হন। ভরসা দিতে পারেননি ‘মি. ডিপেন্ডেবল’ মুশফিকুর রহিম।

বোল্টের বলে বোল্ড হওয়ার আগে করেছেন ৫ রান। আশার প্রদীপ হয়ে ছিলেন তিন নম্বরে নামা সৌম্য সরকার। ২২ বলে ৫ চার ১ ছক্কায় বেশ চড়াও হয়েছিলেন তিনি। তবে ২২ বলে ৩০ রানের ইনিংসটি শেষ হয় হেনরির বলে কট অ্যান্ড বোল্ড হয়ে।

৪২ রানে চতুর্থ উইকেট হারানোর পর দলের বিপর্যয়ে প্রতিরোধ গড়ার চেষ্টা করেন মোহাম্মদ মিঠুন আর মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। কিউই বোলারদের সামনে দুজনেই উইকেট বাঁচানোর লড়াইয়ে ছিলেন। ২৯ রানের ধীর গতির এই জুটি ভাঙে মাহমুদউল্লাহর (১৩) বিদায়েভ ফার্গুসনের বলে দুই দফায় বলটি তালুবন্দি করেন ব্রেন্ডন টেইলর।

৭১ রানে বাংলাদেশের ইনিংসের অর্ধেক শেষ হয়। স্যান্টনারের বলে ল্যাথামের গ্লাভসবন্দি হওয়ার আগে সাব্বিরের সংগ্রহ ২০ বলে ১৩ রান। ২৭ বলে ৩ চার ১ ছক্কায় ২৬ রানের দারুণ একটা কার্যকর ইনিংস উপহার দেন মেহেদী মিরাজ।

একপ্রান্ত আগলে ধীরগতির ব্যাটিংয়ে লড়াই করছিলেন মিঠুন। তার সঙ্গী হন মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন। একপ্রান্ত আগলে রেখে ৭৩ বল ৪টি বাউন্ডারিতে ক্যারিয়ারের তৃতীয় হাফ সেঞ্চুরি তুলে নেন মিঠুন। আপাতদৃষ্টিতে ধীরগতির ইনিংস হলেও পরিস্থিতি বিবেচনায় এটা ছিল ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ।

দারুণ ব্যাটিং করেন সাইফউদ্দিন। হাফ সেঞ্চুরির কাছে গিয়ে স্যান্টনারের শিকার হওয়ার আগে তিনি করেন ৫৮ বলে ৩ বাউন্ডারিতে ৪১ রান। মিঠুনের সঙ্গে তার ৮ম উইকেট জুটিতে আসে ৮৪ রান। ফার্গুসনের বলে মিঠুন থামেন ৯০ বলে ৬২ রানে। মুস্তাফিজের (০) বিদায়ের সঙ্গে সঙ্গে ৪৮.৫ ওভারে ২৩২ রানে অল-আউট হয় বাংলাদেশ।

বাংলাদেশ একাদশ:

মাশরাফি বিন মুর্তজা, তামিম ইকবাল, লিটন কুমার দাস, সৌম্য সরকার, মুশফিকুর রহিম, মাহমুদউল্লাহ, মুস্তাফিজুর রহমান, মেহেদী হাসান মিরাজ, মোহাম্মদ মিঠুন, সাইফ উদ্দিন, সাব্বির রহমান।

নিউজিল্যান্ড একাদশ:

কেন উইলিয়ামসন, ট্রেন্ট বোল্ট, কলিন ডি গ্র্যান্ডহোম, লকি ফার্গুসন, মার্টিন গাপটিল, ম্যাট হেনরি, টম ল্যাথাম, জিমি নিশাম, হেনরি নিকোলস, রস টেইলর, মিচেল স্যান্টনার।