মোটরবাইক কিনে না দেওয়ায় মায়ের গায়ে আগুন দিল ছেলে!

18

মা একটি কাপড়ের দোকান দিয়ে কোনোরকমে সংসার চালান। কিন্তু ছেলে এসব বোঝার চেষ্টাই করে না। তার চাই দামি মোবাইল ফোন, হাল ফ্যাশনের মোটরবাইক।

আর এই চাহিদা পূরণ করতে মা অপরাগ হলে ছেলে আগুন ধরিয়ে দিল মায়ের শরীরে! এই ভয়াবহ ঘটনা ঘটেছে বিধাননগরের নিউ টাউন এলাকায়। অভিযুক্ত ছেলেকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ আদালতে তোলার পর বিচারক তাকে ১৪ দিনের জন্য সংশোধনাগারে রাখার নির্দেশ দেন।

পুলিশের বরাত দিয়ে ওপার বাংলার গণমাধ্যম জানিয়েছে, ছেলের দ্বারা আক্রান্ত মায়ের দুই সন্তান। বড় ছেলে সেই নারীর স্বামীর সঙ্গে থাকেন। ছোট ছেলেকে নিয়ে আলাদা ভাড়া থাকেন তিনি।

স্থানীয় বাসিন্দারা জানিয়েছেন, মাঝেমধ্যেই দামি জিনিস কিনে দেওয়া নিয়ে মা ও ছেলের মধ্যে অশান্তি হতো। ওই কিশোরের একটি মোটরবাইক এবং মোবাইল রয়েছে। তা সত্ত্বেও মায়ের কাছে দামি মোবাইল ও মোটরবাইক কিনে দেওয়ার জন্য কয়েক দিন ধরে বায়না করছিল সে। সোমবার রাত দশটা থেকে সেই নিয়েই অশান্তি চলছিল মা এবং ছেলের।

তদন্তে পুলিশ জেনেছে, অশান্তি চলাকালীন আচমকা ঘরের ভিতরে থাকা কেরোসিন তেল মায়ের গায়ে ঢেলে দেয় ওই কিশোর। এর পরে দেশলাই জ্বালিয়ে মায়ের গায়ে আগুন ধরিয়ে দেয়!

স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ, মায়ের গায়ে আগুন ধরিয়ে ঘরের দরজা বাইরে থেকে বন্ধ করে দাঁড়িয়েছিল ছেলেটি। এক প্রতিবেশী দেখতে পেয়ে প্রথমে বাড়ির মালিককে জানান।

এর পরেই অন্য প্রতিবেশীদের খবর দেওয়া হয়। সকলে মিলে দরজা খুলে ওই নারীকে উদ্ধার করে আগুন নেভানোর কাজে নামেন। ওই কিশোরও তখন মাকে বাঁচানোর চেষ্টা করেছিল বলে জানিয়েছেন স্থানীয়দের কয়েক জন।

অভিযোগ, এর পরেই সুযোগ বুঝে ছেলেটি পালানোর চেষ্টা করলে তাকে ধরে ফেলেন প্রতিবেশীরা। অগ্নিদগ্ধ নারীকে উদ্ধার করে আর জি কর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, নারীর শরীরের ৯০ শতাংশই পুড়ে গিয়েছে। স্থানীয়দের বাঁচাতে দেখে ওই কিশোর এগিয়ে গেলে তার মুখ এবং পা আগুনে সামান্য পুড়েছে। পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ছেলেটিকে আটক করে। বাড়ির মালিকের পক্ষ থেকেই পুলিশের কাছে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।